February 27, 2021, 10:31 pm
Headlines:
UN CDP recommends Bangladesh’s graduation from LDC ডেল্টাপ্ল্যান ২১০০ এর আশি ভাগ কাজের দায়িত্ব পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের: পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী Human Rights Council should emerge as a bastion to defend human rights: Foreign Minister রোবটকে বাংলায় কথা বোঝানোর প্রযুক্তি তৈরি হচ্ছে বাংলা ভাষা সমৃদ্ধকরণ প্রকল্পে: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী কোভিড-১৯ মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রচেষ্টার প্রশংসা করলেন জাতিসংঘ মহাসচিব আরিচা-কাজিরহাট ফেরি সার্ভিসের উদ্বোধন করলেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী দুর্নীতিবাজ, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসীদের আওয়ামী লীগে স্থান নেই: খাদ্যমন্ত্রী সম্ভাবনাময় ব্লকচেইন প্রযুক্তি বিশ্বকে বদলে দিবে: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বছরে ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানি করা সম্ভব :বাণিজ্যসচিব মুজিবনগর স্বাধীনতা সড়কের কাজ আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে শেষ হবে: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী চিনিকলগুলোর কার্যক্রম বৃদ্ধিতে বাংলাদেশ বেভারেজ প্রজেক্টের অগ্রগতি নিয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে একসঙ্গে কাজ করবে বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড যাত্রীসেবার মান বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সরকার: রেলপথ মন্ত্রী ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে সংস্কৃতি-ঐতিহ্যের ওপর আঘাতের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হোন : তথ্যমন্ত্রী মেধা ও সৃজনশীল জাতি গঠনে শিশুদের ডিজিটাল নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে: টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী Islamic banking poised to expand across South and Southeast Asia post-pandemic: Moody’s Research  জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত সকল পর্যায়ের পরীক্ষা ২৪ মে থেকে শুরু হবে Bangladesh denies BBC report on the location of Rohingyas adrift at sea   Bangladesh and Japan agreed to further intensify existing excellent ties

মোংলা বন্দর দেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

The Bangladesh Beyond
  • Published Time Wednesday, December 30, 2020,
মোংলা বন্দরে ৯.৫-১০ মিটার ড্রাফটের জাহাজ হ্যান্ডেল করার লক্ষ্যে ইনার বারে ড্রেজিংয়ের চুক্তি
মোংলা বন্দর দেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী
ঢাকা, ৩০ ডিসেম্বর ২০২০:
মোংলা বন্দরের জেটিতে স্বাভাবিক জোয়ারের সহায়তায় ৯.৫-১০ মিটার ড্রাফটের জাহাজ হ্যান্ডেল করার লক্ষ্যে মোংলা বন্দর চ্যানেলের ইনার বারে ৮.৫০ মিটার গভীরতায় ড্রেজিং করা হবে। আজ মোংলা বন্দরের সভা কক্ষে বন্দর চ্যানেলের ইনার বারে ড্রেজিং সংক্রান্ত একটি চুক্তিপত্র স্বাক্ষরিত হয়েছে। মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম শাহজাহান এবং ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিয়ানসু হাইহং কন্সট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড এবং চায়না সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কন্সট্রাকশন কর্পোরেশনের প্রতিনিধি ইয়াং ঝিজুম ((YANG ZHIJUM) চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন।
নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি এবং মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী এসময় মন্ত্রণালয় থেকে অনলাইনে সংযুক্ত ছিলেন।
ইনার বারে ড্রেজিং এর জন্য ব্যয় হবে ৭৫৪.০৮ কোটি টাকা। ২০২১ এ জানুয়ারিতে ড্রেজিং কাজ শুরু হয়ে ২০২২ সালের জুনের মধ্যে শেষ হবে। চীনের প্রতিষ্ঠান জিয়ানসু হাইহং কন্সট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড (JIANSHU HAIHONG CONSTRUCTION ENGINEERING COMPANY LIMITED-JHCEC) এবং চায়না সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কন্সট্রাকশন কর্পোরেশন (CHINA CIVIL ENGINEERING CONSTRUCTION CORPORATION-CCECC) যৌথভাবে ড্রেজিং কাজটি করবে। ইনার বারে ২১৬.০৯ লক্ষ ঘন মিটার ড্রেজিং করা হবে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, মোংলা বন্দরটি বিগত বিএনপি সরকারের আমলে মৃতপ্রায় বন্দরে পরিণত হয়। ২০০৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর বন্দরের কার্গো হ্যান্ডলিং যন্ত্রপাতিসহ অবকাঠামো উন্নয়ন এবং ড্রেজিং করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুসারে বন্দরের বিভিন্ন প্রকার হ্যান্ডলিং ইকুইপমেন্ট সংগ্রহ, অবকাঠামোর উন্নয়ন এবং ড্রেজিং করার জন্য নানাবিধ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় প্রায় ৭০০ কোটি টাকা ব্যয় করে মোংলা বন্দরের আউটার বারে ড্রেজিং করা হয়েছে। আউটার বারে ড্রেজিংয়ের ফলে বন্দরের এ্যাংকোরেজ এলাকা পর্যন্ত ১০ মিটার ড্রাফটের জাহাজ অনায়াসে আসতে পারবে। ইতোমধ্যে ৯.৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ আসা শুরু করেছে। এতে করে বন্দরে আগত জাহাজের সংখ্যা বৃদ্ধি বন্দরের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি বলেন, ইনার বারে ড্রেজিং সমাপ্ত হওয়ার পর বন্দরে আগত জাহাজের টার্ণ এ্যারাউন্ড টাইম কমে যাবে, পণ্য পরিবহন খরচ সাশ্রয় হবে। মোংলা বন্দরে জাহাজের সংখ্যা অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে, যা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উন্নয়নসহ দেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে।
উল্লেখ্য, বঙ্গোপসাগর হতে প্রায় ১৩১ কিলোমিটার উজানে পশুর নদীর তীরে মোংলা বন্দর অবস্থিত। পশুর চ্যানেলের নাব্যতা সংকটের কারণে মোংলা বন্দরের জেটিতে ৭.৫ মিটারের অধিক ড্রাফটের জাহাজ হ্যান্ডলিং করা সম্ভব হতো না। ফলে এসব জাহাজ প্রথমে চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেইনার খালাস করে ড্রাফট কমিয়ে মোংলা বন্দরে আসতো। এতে মোংলা বন্দরে কন্টেইনার পরিবহনের খরচ ও সময় বৃদ্ধি পায়। মূলত এ কারণেই কন্টেইনারাইজড মালামাল আমাদানী-রপ্তানীতে ব্যবসায়ীগণ মোংলা বন্দর ব্যবহারে অনীহা প্রকাশ করতো।
বর্তমানে চট্টগ্রাম বন্দরেও সর্বোচ্চ ৯.৫০ মিটার ড্রাফটের জাহাজ হ্যান্ডেল করা হচেছ। সে বিবেচনায় এই ড্রেজিং করা হলে চট্টগ্রাম বন্দর মোংলা বন্দরেও সর্বোচ্চ ৯.৫০ মিটার ড্রাফটের জাহাজ হ্যান্ডেল করা সম্ভব হবে। সে বিবেচনায় এই ড্রেজিং করা হলে চট্টগ্রাম বন্দর মোংলা বন্দরের ড্রাফটের কোন পার্থক্য থাকবে না এবং মোংলা বন্দর চট্টগ্রাম বন্দরের উপযুক্ত বিকল্প বন্দরে পরিণত হবে।

Social Medias

More News on this Topic
01779911004