April 14, 2021, 1:15 am
Headlines:
রাশিয়ান বিশ্ববিদ্যালয় গুলির অনলাইন শিক্ষামূলক প্রদর্শনী ২১ এপ্রিল বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হবে মশার লার্ভার বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে: ঢাদসিক মেয়র  বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে ই-পোস্টার প্রকাশ সারা দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ২ লাখ ৩৭ হাজার ৩২৯ জনের ভ্যাকসিন গ্রহণ নিরবচ্ছিন্ন পানি সরবরাহে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরকে নির্দেশ স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর বিডা’র অনলাইন ওএসএস পোর্টালে যুক্ত হলো আরো ৫ টি নতুন সেবা আগামীকাল থেকে পবিত্র রমজান মাস গণনা শুরু ভুয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি নিলেন মমতাজ ১৩ এপ্রিল কোভিড-১৯ সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন সরকার সব সময় আপনাদের পাশে রয়েছে : প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সকল প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার নির্দেশ বাংলা নববর্ষে তথ্যমন্ত্রীর শুভেচ্ছা পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর বাণী  পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতির বাণী বাংলা নববর্ষ উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর বাণী  বাংলা নববর্ষ উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতির বাণী মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধকালে জেলেদের জন্য ৩১ হাজার মেট্রিক টন ভিজিএফ চাল বরাদ্দ করোনা রোধে বিধিনিষেধ চলাকালে জরুরি প্রয়োজনে পুলিশের MOVEMENT PASS কোভিড-১৯ সংক্রমিত রোগীর ঢাকামুখী না হওয়ার পরামর্শ নওগাঁয় তিনটি উপজেলায় সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্লান্টের উদ্বোধন করলেন খাদ্যমন্ত্রী

গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য শুধুই ধন্যবাদ প্রধানমন্ত্রীর

The Bangladesh Beyond
  • Published Time Tuesday, April 14, 2020,
ফাইল ছবি

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে করোনা থেকে সুরক্ষিত থাকতে সবাইকে ঘরে বসে নববর্ষ পালনের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাশাপাশি চিকিৎসক, নার্সসহ বিভিন্ন পেশাজীবীর জন্য বিমা ও প্রণোদনার কথা জানালেও ঝুঁকির মধ্যে তথ্যসেবা দিয়ে যাওয়া গণমাধ্যমকর্মীদের কেবল ধন্যবাদ দিয়েছেন।

যদিও কিছুদিন আাগে তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে গণমাধ্যম মালিকদের প্রতিনিধি দল বিরূপ পরিস্থিতিতে প্রণোদনা দিয়ে গণমাধ্যমকে সহায়তার দাবি জানিয়েছিলেন। সাংবাদিক, সম্পাদক ও সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতারা বলছেন, গণমাধ্যম কখনোই ধন্যবাদ পাওয়ার জন্য কাজ করে না। তবে বিরূপ পরিস্থিতিতে তারা প্রধানমন্ত্রীর কাজ থেকে ধন্যবাদের পাশাপাশি প্রণোদনা আশা করেছিলেন।

তারা বলছেন, যখন কিনা আইনশৃঙ্খলাবাহিনী চিকিৎসক নার্সদের মতো সাংবাদিকরাও নিরলস তথ্য সেবা দিচ্ছে, ঝুঁকি নিয়ে ঘরের বাইরে বের হয়ে কাজ করছে তখন তাদের জন্য প্রধানমন্ত্রী কোনও প্রস্তাবনা রাখলে সেটি উৎসাহব্যঞ্জক হতো।

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে যারা চিকিৎসা সেবা দেওয়াসহ ঝুঁকিপূর্ণ কাজে আছেন তাদের জন্য বিমার ঘোষণা দেন। এছাড়াও এর আগে ব্যবসায়ী থেকে খেটে খাওয়া মানুষদের জন্য ৯৫ হাজার ৬১৯ কোটি টাকার প্রণোদনা বাজেট ঘোষণা করেছেন তারও উল্লেখ করেন। তবে এই ভাষণে মিডিয়াকর্মীদের জন্য ছিল শুধুই ধন্যবাদ।

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য অন্য পেশাজীবীদের সঙ্গে সাংবাদিকদেরও ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নিয়োজিত পুলিশ-সহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও সশস্ত্রবাহিনীর সদস্যবৃন্দ, সরকারি কর্মকর্তা, মিডিয়া কর্মী, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী আনা-নেওয়ার কাজে এবং মৃত ব্যক্তির দাফন ও সৎকারের দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মীগণসহ জরুরি সেবা কাজে যাঁরা নিয়োজিত রয়েছেন, তাঁদের আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতি অনুরোধ করেছেন, দায়িত্বশীলতার সঙ্গে সঠিক তথ্য তুলে ধরে এই মহামারি মোকাবিলা করতে আমাদের সহায়তা করুন।

নববর্ষ পালনের এই ভাষণে এর বাইরে গণমাধ্যমকর্মীদের বিষয়ে আর কোনও কথা বলেননি প্রধানমন্ত্রী। এর আগে গত ৫ এপ্রিল যে বিশাল প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন তিনি তাতে সমাজের সব স্তরের পেশাজীবীদের বিভিন্ন রকম প্রণোদনা দেওয়ার কথা সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হলেও কোথাও গণমাধ্যম বা গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য কোনও প্যাকেজের বা প্রণোদনার কথা উল্লেখ করা হয়নি।

অথচ করোনার এই ঝুঁকির ভেতরেই সংবাদকর্মীরা দায়িত্বশীলতার সঙ্গে নিয়মিত মাঠে ও অফিসে কাজ করছেন এবং পেশাগত কাজের কারণেই এরইমধ্যে ৬ জন সংবাদকর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। একাধিক প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের কাজ সামলাতে গিয়েই হোম কোয়ারেন্টিনে যেতে হয়েছে।

ঋণের প্রক্রিয়া সম্পর্কে তিনি বলেন, যদি সরকার সংবাদ-কর্মীদের সহায়তা করতেই চান তাহলে সেটি সাংবাদিক কর্মচারীদের অ্যাকাউন্টে সরাসরি দিতে হবে। পরবর্তীতে মালিক সেই টাকা স্বল্পসুদে সরকারকে ফেরত দিতে পারেন।

প্রধানমন্ত্রী সাংবাদিকদের ধন্যবাদ দিয়ে তাদের কাজের মূল্যায়ন করেছেন উল্লেখ করে সাংবাদিক নেতা সোহেল হায়দার চৌধুরী বলেন, ধন্যবাদের পাশাপাশি এখন নিরাপত্তা, বকেয়া বেতনসহ যেসব সংকটের মধ্যে সাংবাদিকরা রয়েছেন সেখানে তাদের প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে পুরস্কারও পাওয়া উচিত।

কিছু প্রতিষ্ঠান বাদে বেশিরভাগ সাংবাদিকের সময়মতো বেতনভাতা পরিশোধ সম্ভব হচ্ছে না উল্লেখ করে এই নেতা বলেন, সামনে রোজার ঈদ আছে। প্রধানমন্ত্রী তার তহবিল থেকে পেশাজীবী সাংবাদিকদের যৌক্তিক তালিকা করে থোক বরাদ্দ দিতে পারেন। এবং লক্ষ্য রাখতে হবে প্রকৃত সাংবাদিকরাই যেন সেটি পান।

তিনি বলেন, আমি এও মনে করি রাষ্ট্রের যে সৈনিকেরা সব ভয়কে জয় করে মাঠে আছে তাদেরসহ সাংবাদিকদের জন্য এই আপদকালীন সময়ে রেশনিং এর ব্যবস্থা করা দরকার।

Social Medias

More News on this Topic
01779911004